building habit.

সিগারেট, এক টানেতে ভালো লাগে!!! ::

সিগারেট খাওয়া কেম্নে শুরু হয় সেটা সবাই জানে।

প্রথম প্রথম, বন্ধুদের সাথে এক টান, দুই টান।

কারণ,

এক টানেতে ভালো লাগে, দুই টানেতে মজা।

আলসেমিটা ভেঙ্গে দিয়ে মন করে দেয় তাজা।

তারপর আসে, কে কতক্ষণ ধুয়া ধরে রাখতে পারে, গিলে খাইতে পারে।

নাকে দিয়া, পশ্চাদ অঙ্গ দিয়া বের করতে পারে, সেই কম্পিটিশন।

আস্তে আস্তে অভ্যাস তৈরী হয়।

তারপর, দুপুরে ভাত খাওয়ার পর একটা না খাইলে ভালো লাগে না।

চা খাওয়ার পর একটা না হইলে কেমন জানি ঝমে না, গা ম্যাজম্যাজ করে।

স্লোলি, দিনে পাচ টা, আধা প্যাকেট থেকে ফুল প্যাকেটের লেভেলে আপগ্রেড হয়।

সারাদিনে দুই প্যাকেট ::

যে জীবনে কোন দিন সিগারেট খায় নাই, যদি তারে গিয়ে বলেন,

আজকে সারাদিন সিগারেট খাবা বা সারাদিনে দুই প্যাকেট শেষ করবা।

দুই প্যাকেট তো দুর কি বাত, দুই পিস ই খাইতে পারবে না।

আজকে ফাটায়া ফেলবো ::

অথচ এই কাজটাই আমরা করি

ছয় মাস পর পর একটা দিন সেট করি,

আজকে সারাদিন ফটোগ্রাফি করে বা গিটার শিখে বা প্রোগ্রামিং করে ফাটায়া ফেলবো

কিন্তু শেষমেষ দেখা যায়, এক লাইনও করা হয় না। এমনকি শুরুই করা হয় নাই।

কারণ, যে সিগারেট খাওয়ার মজা পায় নাই, সে হুট করে একদিনে দুই প্যাকেট খাইতে পারবে না।

তেমনি নতুন কোনো জিনিস শিখতে গেলে, একদিনে দুনিয়া উল্টায় ফেলতে পারবেন না।

নেশার জগতে প্রবেশ::

ধরেন আপনি, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখতে চান।

সেটার অভ্যাসও আস্তে আস্তে তৈরী করতে হবে।

সিগারেট খাওয়া শুরু করার স্টাইলে।

প্রথম প্রথম খুঁজে বের করেন, ফ্রেন্ড বা পরিচিত কেউ, যে প্রোগ্রামিং করে

তারসাথে প্রোগ্রামিং নিয়ে আড্ডা দেন। সে কেম্নে কি করে সেটা জানতে চান।

অনেকেই আছে, নিজের কাজ বা মুন্সীয়ানা দেখাতে ভালোবাসে।

তারে সেই সুযোগ দেন। তার বকর বকর শুনেন। মাথা মুন্ডু কিচ্ছু বুঝবেন না

তাও শুনেন। অনেকটা সাবটাইটেল ছাড়া কোরিয়ান মুভি দেখার মতো।

রেন্ডম দুই একটা ভিডিও, দুই চার মিনিট দেখেন। ভালো না লাগলে বন্ধ করে দেন।

রাত্রে ঘুমানোর আগের ১০ মিনিট ফেইসবুকিং না করে

হুকুশ পাকুশের প্রোগ্রামিং সাইটে কয়েকটা লাইন দেখেন, তারপর ঘুমায় পড়েন

বা অন্য কোনো সাইটে, জাস্ট ১০মিনিট চোখ বন্ধ করার আগে টাইম পাস করবেন।

এই ১০ মিনিট চালায় যান। ল্যাপটপে না পারলে, মোবাইলে

এক-দেড় মাস পরে, দেখা যাবে, চাইছিলেন ১০ মিনিট কিন্তু টাইম নিচ্ছে ২০ বা ৩০ মিনিট।

তারমানে আস্তে আস্তে আপনি, নেশার জগতে প্রবেশ করতেছেন।

আরো কিছু দিন পরে দেখবেন, সকালে উঠেই ডাইরেক্ট ফেইসবুকে না গিয়ে

এমনকি দাত ব্রাশ করারও আগে, ১০ বা ২০ মিনিট কিছু টিউটোরিয়াল দেখে ফেলছেন।

বা লাইট অফ করে ঘুমানোর পরে, আবারো লাইট জ্বালিয়ে অন্যভাবে প্রোগ্রাম ট্রাই করছেন

এর মধ্যে কোথাও কোনো কিছু দেখে, নিজে করতে গিয়ে আটকে গেছেন

সেটা গুতায় গাতায় সুবিধে না করতে পারলে বাদ দেন।

কয়েকবার চেষ্টার পরে দেখবেন একদিন খুচরা একটা জিনিস করে ফেলতে পারছেন।

কি আনন্দ আকাশে বাতাসে, টাইপের ফিলিং আসবে

নেশাগ্রস্থ হবার আশির্বাদ ::

এইভাবে নেশার জগতে আস্তে আস্তে আস্তে প্রবেশ করে ফেল্লে,

সারাদিন প্রোগ্রামিং বা ফটোগ্রাফি বা গিটার বাজানো কোনো ব্যাপারই না

কিন্তু হুট করে সারাদিন করার প্ল্যান করলে, এক চিমটিও লাভ হবে না

নেশাগ্রস্থ হবার আশির্বাদ রইলো।

 

সুত্রঃ ঝংকার মাহবুব

Leave a Reply